HSC 2021 Social Work Assignment Answer Solution

Rate this post

HSC 2021 Social Work Assignment Solution: For the humanities group of students new assignment notice has been published dshe.gov.bd web portal website. Recently a new notice has been submitted for 1st and 2nd week’s assignments. Now, students this assignment solution is sent to the college authority.

The Department of Secondary and Higher Education authority has published Higher Secondary School (HSC) for humanities students studying a new assignment is Social Work.

HSC Social Work Assignment 2021

Higher Secondary Certificate (HSC) of studying students for the humanities very essential subject is Social Work. So, Students need to download and carefully read the assignment. You can try a Social Work assignment for HSC Batch 2021.

For the covid-19 pandemic situation the education minister no way declared open the institution. So, various institutions have started to initiate online class processes. 

অ্যাসাইনমেন্ট

ডব্লিউ, এ,  ফ্রিডল্যান্ডার এবং এনসাইক্লোপিডিয়া অব সােস্যাল ওয়ার্ক প্রদত্ত সমাজকর্মের সংজ্ঞার আলােকে সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়ােজনীয়তার পক্ষে যৌক্তিকতা

শিখনফল

বিষয়বস্তু • সমাজকর্মের ধারণা ব্যাখ্যা করতে পারবে • সমাজকর্মের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করতে পারবে • সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়ােজনীয় তাব্যাখ্যা করতে পারবে।

নির্দেশনা: (সংকেত/ধাপ/পরিধি)

  • ডব্লিউ, এ, ফ্রিডল্যান্ডার এবং এনসাইক্লোপিডিয়া অব সােস্যাল ওয়ার্ক প্রদত্ত সমাজ কর্মের সংজ্ঞা
  • সমাজকর্মের এই ২টি সংজ্ঞার তুলনামূলক উপস্থাপন ও ব্যাখ্যা .
  • সমাজকর্ম ধারণার পরিপ্রেক্ষিতে সমাজকর্মের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বর্ণনা 
  • সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়ােজনীয়তার পক্ষে যৌক্তিকতা
HSC 2021 Social Work Assignment

HSC Assignment 2021 Social Work Answer

ক) সমাজকর্মের সংজ্ঞাঃ

 সমাজকর্মের ধারণায় ওয়াল্টার এ ফ্রিডল্যান্ডার (Water A Friedlander) বলেন, সমাজকর্ম হলাে মানবীয় সম্পর্ক বিষয়ক বৈজ্ঞানিক জ্ঞান ও দক্ষতাভিত্তিক এমন এক পেশাদার সেবাকর্ষ যা ব্যক্তিগত ও সামাজিক সন্তুষ্টি এবং স্বাধীনতা অর্জনের জন্যে এককভাবে বা দলীয়ভাবে ব্যক্তিকে সহায়তা করে।

( Social Work is a professional service based upon scientific knowledge and skills in human relations, which assists individuals alone or in groups to obtain social and personal satisfaction and independence.)

সমাজকর্ম বিশ্বকোষ 

(Encyclopedia of Social Work)-এ সমাজকর্মের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে, ‘সমাজকর্ম হলাে একটি পেশাগত ও একাডেমিক শৃঙ্খলা; যা ব্যক্তি, পরিবার, দম্পতি, দল ও সমষ্টির গুণগত জীবনমান অর্জন ও কল্যাণে গবেষণা, নীতি, সমষ্টি সংগঠন, সরাসরি অনুশীলন, সঙ্কটে হস্তক্ষেপ ও শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে উন্নয়নে সচেষ্ট, যার সুফল। সামাজিকভাবে অসুবিধাগ্রস্ত যেমন- দারিদ্র্য, মানসিক ও শারীরিক অসুস্থতা বা অক্ষমতা এবং জনগণের স্বাধীনতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতাে সামাজিক অবিচার দূর করে। (Social work is a professional aụd academic discipline that seeks to improve the quality of life and subjective well-being of individuals, families, couples, groups and communities through research, policy, community organizing, direct practice, crisis intervention and teaching for the benefit of those affected by social disadvantages such as poverty, mental and physical illness or disability and social injustice, including violations of their civil liberties and human rights.)

খ) সমাজকর্মের সংখ্যার তুলনামূলক উপস্থাপনঃ

উপরে আলােচিত ওয়াল্টার এ. ফিনল্যান্ডের ও সমাজকর্ম বিশ্বকোষ এর সংজ্ঞা দুটিতে সমাজকর্ম কে একটি পেশাগত কর্ম বলা হয়েছে। উভয় সংঘাতে দেখা যায় যে সমাজকর্ম একটি পেশাদার সেবাকর্ম যা স্বতন্ত্র ব্যক্তি, দল কিংবা সামাজিক সন্তুষ্টি অর্জনে অগ্রণী ভূমিকা পালন করে।

ফিল্যান্ডারের সংজ্ঞায় বলা হয়েছে সমাজকর্ম স্বাধীনতা অর্জনে এককভাবে বা দলীয়ভাবে ব্যক্তিকে সহায়তা করে। তেমনিভাবে সমাজকর্ম বিশ্বকোষ-এর সংজ্ঞায় বলা হয়েছে সমাজকর্ম সামাজিক অসুবিধা গ্রস্থ যেমন দারিদ্র মানসিক ও । শারীরিক অসুস্থতা বা অক্ষমতা এবং জনগণের স্বাধীনতা ও মানবাধিকার লঙ্ঘনের মতাে সামাজিক অবিচার দূর করে। অর্থাৎ ব্যক্তির স্বাধীনতা রক্ষায় ভূমিকা পালন করে।

ডব্লিউ এ ফিনল্যান্ডের ও সমাজকর্ম বিশ্বকোষ- উভয় সংজ্ঞাতেই সমাজকর্মের ধারণার যথেষ্ট মিল রয়েছে।

গ) সমাজকর্মের লক্ষ্য ও উদ্দেশ্যঃ

মানুষ সামাজিক জীব মানুষ সৃষ্টির সূচনা লগ্ন থেকেই সমাজবদ্ধভাবে বসবাস করে আসছে। কারণ কোন মানুষের পক্ষেই একা বসবাস করা সম্ভব নয়। সমাজ পরিবর্তনশীল এবং এই পরিবর্তনশীল সমাজের সাথে সামজ্ঞস্য রেখে চলতে মানুষ অনেক সময় ব্যর্থ হয়। যার ফলে সমাজে সৃষ্টি হয় নানা সামাজিক সমস্যা। আর এ সকল সমস্যার সমাধান এবং মানুষকে তার সামাজিক পরিবেশের প্রতিটি স্তরের জনগণকে সক্রিয় ও সামঞ্জস্য স্থাপনে সক্ষম করে তোলার জন্য সমাজকর্মের উদ্ভব।

সমাজকর্মের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিম্নরূপঃ

  • জনগণের সমস্যার সমাধান, উপযােজন এবং ক্ষমতার উন্নয়ন
  • সম্পদ, সেবা ও সুযােগের সাথে মানুষের সংযােগ ঘটানাে
  • কার্যকরী ও মানবীয় ব্যবস্থা ত্বরান্বিত করা।
  • সামাজিক নীতির বিকাশ ও উন্নয়ন।
  • কার্যকর সামাজিক ভূমিকা পালনের জন্য ব্যক্তিগত ও সামাজিক সম্পদের সমাবেশ করা;
  • সামাজিক বিপর্যয় প্রতিরােধ করা।

সার্বিকভাবে বলা যায় যে, সমাজকর্মের লক্ষ্য হলাে সমাজজীবন থেকে সকল প্রকার জটিল সমস্যা দূর করে পরিকল্পিত উপায়ে কাঙ্ক্ষিত ও গঠনমূলক সামাজিক পরিবেশ সৃষ্টি করা। এ উদ্দেশ্যে সমাজকর্ম জাতি, ধর্ম, বর্ণ, শ্রেণি নির্বিশেষে সকল মানুষের ব্যক্তিগত, দলীয় ও সমষ্টিগত সমস্যা সমাধানে সাহায্য করে।

ঘ) সমাজকর্ম পাঠের প্রয়ােজনীয়তাঃ 

আমাদের বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়ােজনীয়তা অপরিসীম। কারণ, হাজারাে সামাজিক সমস্যায় জর্জরিত আমাদের এই বাংলাদেশ।

পৃথিবীর অন্যান্য সমস্যাসংকুল দেশের ন্যায় আমাদের দেশেও সমাজকর্মের প্রয়ােগক্ষেত্র বৃদ্ধি পাচ্ছে। তাই প্রয়ােজনীয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে সমাজকর্ম পাঠের। সমাজকর্মে অর্থনৈতিক ও সামাজিক উভয় দিককেই সমান গুরুত্ব প্রদান করা হয়। সে নিরিখে সামাজিক ও অর্থনৈতিক পরিবেশ নিয়ন্ত্রণ ও উন্নয়নে সমাজকর্ম পাঠের প্রয়ােজনীয়তা বিশেষভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। আধুনিক সমাজের সমস্যাগুলাে বহুমুখী ও জটিল প্রকৃত্রি। শিল্প বিপ্লবের ফলে সমাজজীবনে যেমন যান্ত্রিক উৎকর্ষতার সৃষ্টি হয়েছে তেমনি সমাজে সৃষ্টি হয়েছে নানা জটিল ও বহুমাত্রিক সমস্যার। বিভিন্নমুখী চাহিদা ও সমস্যার কারণ, প্রভাব ইত্যাদি সম্পর্কে যথাযথ অনুসন্ধানে সমাজকর্মের বস্তুনিষ্ঠ জ্ঞানের অপরিহার্যতা উল্লেখযােগ্য। সমাজকর্ম তার মৌলিক ও সহায়ক পদ্ধতির অনুশীলনের মাধ্যমে সমস্যার উৎস, কারণ, প্রকৃতি ও প্রভাব নির্ণয় করে সেগুলাের সমাধানে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

আমাদের সম্পদ সীমিত কিন্তু চাহিদা অসীম। এই সীমিত সম্পদের সর্বোত্তম ব্যবহার নিশ্চিত করে সমাজে বিরাজমান, বিভিন্ন সমস্যা মােকাবিলা করতে বাস্তবমুখী কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়নের মাধ্যমে একদিকে যেমন জনগণের আয় বাড়ানাে যায় তেমনি ব্যক্তির সুপ্ত ক্ষমতার বিকাশ সাধন করে স্বাবলম্বী করে গড়ে তােলা সম্ভব হয়। এক্ষেত্রে সামাজিক, অর্থনৈতিক, মানবীয় সকল প্রকার সম্পদের সর্বোচ্চ। সদ্ব্যবহারে সমাজকর্মের জ্ঞান বিশেষভাবে উপযােগী।

সমাজকর্মের জ্ঞান, মূল্যবােধ ও নীতিমালাগুলােআত্মস্থ ও অনুসরণ করে একজন সমাজকর্মী সমাজের আদর্শ হিসেবে নিজেকে গড়ে তুলতে পারে।

সুতরাং বলা যায় যে, আধুনিক জ্ঞান-সভ্যতার বিকাশ ও ধারাবাহিকতায় সমাজকর্ম অবিচ্ছেদ্যভাবে সম্পর্কিত। শুধু বাংলাদেশেই সমাজকর্ম পাঠের প্রয়ােজনীয়তা রয়েছে তা নয় বরং সারা বিশ্বে সমাজকর্ম শিক্ষার প্রয়ােজনীয়তা অনস্বীকার্য। তাই সমাজ ও মানুষের সার্বিক কল্যাণ ও উন্নয়নে সৃষ্ট প্রতিবন্ধকতা দূর করতে সমাজকর্ম শিক্ষার কোনাে বিকল্প নেই।

Leave a Comment